[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী সারমিনের প্রতারণার শিকার ব্যবসায়ী মামুন।

প্রকাশঃ June 18, 2016 | সম্পাদনাঃ 18th June 2016

protarona

কোম্পানীগঞ্জ ( নোয়াখালী ) প্রতিনিধিঃ মোঃ রাসেল উল্ল্যাহ


 

 

উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের সৌদি প্রবাসী জাকের হোসেনের স্ত্রী সুন্দরী শারমিন আক্তার (২৮) এর প্রতারণার শিকার বসুরহাট বাজারের বিশিষ্ট তরুণ ব্যবসায়ী ভাই ভাই টেলিকমের মালিক এইচ.এম মান্নান মামুন (২৬)। শারমিনের কু-প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে প্রতিবাদ করলে ,মামুনকে অপহরণে ব্যর্থ হয়ে জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে সাক্ষর নিয়ে কোর্টে মামলা দায়ের করে ১১ দিন জেল খাটায় শারমিন। এতেও ক্ষান্ত নয় সে। প্রবাসী স্বামীর পাঠানো টাকার বল দেখিয়ে বিভিন্ন সন্ত্রাসী শ্রেণীর লোক দিয়ে শারীরিক, মানুষিক ও ব্যসায়িক ভাবে ক্ষতি করার হুমকি ধমকি দিচ্ছে। বর্তমানে মামুন চরম উৎকন্ঠায় দিন অতিবাহিত করছে। শারমিন কবিরহাট উপজেলার বাটইয়া ইউনিয়নের চন্দ্রশুদ্দি গ্রামের আবদুস সামাদ ভূঁঞা বাড়ী প্রকাশ হুমায়ুন মাস্টার বাড়ীর নুর নবীর মেয়ে।
জানা যায়, শারমিন মামুনের দোকানের দীর্ঘদিনের নিয়মিত কাস্টমার। বিভিন্ন প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে মামুনের মোবাইল ফোনে শারমিন ফোন দিলে প্রথম প্রথম মামুন বিষয়টি কে সম্পূর্ণ ব্যবসায়িক প্রয়োজনই মনে করে। কিন্তু আকার-ইঙ্গিতে মামুনকে নানা কু-প্রস্তাব দিয়ে স্বামী প্রবাসে থাকায় নানা কষ্টের কথা তুলে ধরে শারমিন মামুনের কাছে। মামুন আত্ম-সম্মানবোধের কথা চিন্তা করে শারমিন কে উপেক্ষা করতে থাকে। ধৈর্য্য হারায় না শারমিন। চেষ্টা করতে থাকে মামুন কে ভাগে পেতে। নানা রকম লোভ দেখায়। মামুন শারমিনের প্রবাসী স্বামী’র নাম্বার সংগ্রহ করে বিষয়টি জানিয়ে দেয়। বাঘিনী’র রূপ ধারণ করে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে শারমিন। মোবাইল ফোনেই মামুনকে অপহরণ সহ গুম করার হুমকি দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত বছরের ২২ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৭টায় মামুন বাড়ী থেকে দোকানে আসার পথে বসুরহাট জিরোপয়েন্টে পৌঁছলে শারমিনের নির্দেশে ৩/৪জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি জোরপূর্বক মামুনকে অজ্ঞাতনামা জিএনজি যোগে উঠিয়ে চোখ-মুখ বেঁধে ফেনী শহরের একটি দো-তলা বিল্ডিংয়ের উপরে নিয়া যায়। এ সময় তার সাথে থাকা বিকাশের নগদ ৩ লক্ষ টাকা ও মোবাইল সেট ছিনিয়া নিয়া যায়। পরে অজ্ঞাত ওই সকল সন্ত্রাসীদের সহায়তায় জোর পূর্বক মামুনের সাথে শারমিনের ছবি তোলে এবং ২৫০ টাকা মূল্যে সাদা স্ট্যাম্পে মামুনের স্বাক্ষর নিয়ে পর দিন ভোর বেলা ফেনী’র মহিপালে মামুনকে ছেড়ে দেয়। মামুন ফিরে এসে সম্পূর্ণ ঘটনা উল্লেখ করে কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং-১৮, তাং- ২৮/০৯/২০১৫ইং
এ দিকে শারমিন মামুনের স্বাক্ষরিত সেই ২৫০টাকা মূল্যের সাদা স্ট্যাম্পে নিজের মনগড়া কথাবার্তা লিখে ১৫ লক্ষ টাকা পাওনা দাবী করে নোয়াখালী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা দায়ের করে মামুনকে গ্রেফতার করার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। মামুন ৫ জুন সকালে কোর্টে জামিনের জন্য গেলে কোর্ট চত্বর থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। দীর্ঘ ১১দিন বিনা অপরাধে গ্রেফতার থাকায় মামুন ব্যবসায়িক ভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয় ও সম্মানের হানী ঘটে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শারমিন বসুরহাট বাজারের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়তে অর্থ ব্যয় ও বিভিন্ন অসদোপায় অবলম্বন করে। বর্তমানে রাশেদ ও শাহীন নামে দুই যুবকের পরকীয়া প্রেমে হাবুডুবু খাওয়ার গুঞ্জন রয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ