[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

মশাল নিয়ে শুনানি চলছে

প্রকাশঃ April 6, 2016 | সম্পাদনাঃ 6th April 2016

 

mosal20160406062810মশাল প্রতীক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কোন অংশ পাবে তা নিয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) শুনানি চলছে। বুধবার বেলা  ১১টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে ইসির সম্মেলন কক্ষে শুনানি শুরু হয়।

দলে ভাঙন হওয়ার পর নির্বাচনী প্রতীক মশাল পাওয়ার দাবি করা এক পক্ষের সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও  সাধারণ সম্পাদক শিরিন আক্তারের শুনানিতে অংশ নিয়েছেন।

এছাড়াও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নুরুল আক্তার, ড. আনোয়ার হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. হাবিবুর রহমান শওকত, সাবেক সংসদ সদস্য জিকরুল আহমেদ খোকন, ঢাকা মহানগর জাসদের সভাপতি মির আক্তার উপস্থিত রয়েছেন।

সিইসির সভাপতিত্বে নির্বাচন কমিশনার মো. আবদুল মোবারক, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. জাবেদ আলী, মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ, ইসি সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম সচিব আইন ড. শাজাহান শুনানিতে রয়েছেন। বিকেলে ৩টায় অপরপক্ষ বাদল-প্রধানের শুনানি হবে।

এর আগে  মঙ্গলবারের মধ্যে দু’পক্ষের পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা, সম্মেলনের কার্যবিরণী ও গঠনতন্ত্রের কপি ইসিতে জমা দিতে বলা হয়।

জাতীয় কাউন্সিলে আলাদা আলাদা দু’টি কমিটি গঠনের বিষয়ে যুক্তি তুলে ধরে সম্মেলনের কার্যবিবরণীসহ আনুষাঙ্গিক কাগজপত্র মঙ্গলবার বিকেলে ইসিতে পৌঁছে দেয় দুই পক্ষ।

জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরে দু`ভাগ হয়ে যায় দলটি। সংসদ সদস্য শিরিন আখতারকে সাধারণ সম্পাদক করার বিরোধিতা করে ১২ মার্চ কাউন্সিলে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদ থেকে বেরিয়ে আলাদা কমিটি ঘোষণা করে দলটির একটি অংশ।

শরীফ নুরুল আম্বিয়াকে সভাপতি ও সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধানকে সাধারণ সম্পাদক করা হয় এই কমিটিতে। এই কমিটিতে কার্যকরী সভাপতি হয়েছেন সংসদ সদস্য মইন উদ্দীন খান বাদল।

ইসি ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের প্রক্রিয়া শুরু করে। এখন পর্যন্ত ৪০টি দল নিবন্ধিত রয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ