[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

ভ্রমণ হবে বৃষ্টিতে

প্রকাশঃ June 18, 2016 | সম্পাদনাঃ 18th June 2016
large (1)
ফটোসোর্স-tackk.com
(স্বাধীনতা৭১ডটকম) বৃষ্টির দিন বলতেই আমরা ধরে নিই কাদা, পানি, স্যাঁতস্যাঁতে অবস্থা। এর মধ্যে আবার বেড়ানো? ছাদে গিয়ে বৃষ্টিতে ভেজা পর্যন্ত ঠিক আছে। কিন্তু দূরে কোথাও ভ্রমণের কথা মাথায়ই আসে না আমাদের। অথচ আপনি জানেন কি, কিছু জায়গা রয়েছে এমন যার রূপ খোলে বর্ষাতেই? গ্রীষ্ম বা শীতে শুকিয়ে কাঠ, কিন্তু বর্ষা এলেই প্রাণ ফিরে পায় জায়গাগুলো।
আমাদের দেশের উত্তর থেকে দক্ষিণে সমগ্রটাই সবুজে সেজে ওঠে বর্ষায়। ঝর্ণা, জলপ্রপাত, বন সবই যেন নেচে ওঠে আনন্দে। তাই আসছে বর্ষায় ব্যাগ গুছিয়ে নেমে পড়ুন ভ্রমণে। তার আগে জেনে নিন, কোথায় কোথায় গেলে সবচেয়ে উপভোগ্য হবে আপনার বৃষ্টিবিলাস!
আজ দ্বিতীয় পর্বে তুলে ধরছি বান্দরবানের মনোমুগ্ধকর জায়গাগুলো-

ফটোসোর্স-hassantanvir.wordpress.com
 
নীলগিরি
নীলগিরির নাম শোনেন নি এমন ভ্রমণপ্রিয় কোন বাঙ্গালী নিশ্চয়ই নেই। অনেকেই ইতিমধ্যে ভ্রমণ করেছেন, অনেকের হয়ত তালিকায় আছে জায়গাটি। খুবই জনপ্রিয় এই পর্যটক স্থানটি বর্ষায় ভ্রমণের জন্য আদর্শ। বান্দরবান সদর থেকে ৪৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে অনেক উপরে এর অবস্থান। এক সময় একে বাংলাদেশের দার্জিলিং বলা হত। পাহাড়ের উপর দাঁড়িয়ে সামনে অগুণতি পাহাড় আর মেঘের মিলন দেখতে পাবেন আপনি। মেঘ ছুঁয়ে যাবে আপনাকেও।

ফটোসোর্স-tour.com.bd
বগা লেক
বর্ষায় চাঁদের গাড়ি বগা লেক পর্যন্ত যায় না। পাহাড়ি পথে রোমাঞ্চকর ট্রাকিং বেছে নিতে পারেন সেক্ষেত্রে। লেকটি চার দিকে সবুজ পাহাড়ে বেষ্টিত। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২৭০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত লেকটি অবাক করে দেয় যে কোন পর্যটককে। টলটলে স্বচ্ছ পানি আর আদিবাসিদের আতিথেয়তায় দারুণ হবে বগা লেক ভ্রমণ। মেঘ ঢেকে দিয়ে যাবে আপনাকে, আবার নামবে বৃষ্টি। রাতে আকাশ পরিষ্কার থাকলে দেখা মিলবে অগুণতি তারার।
ফটোসোর্স-commons.wikimedia.org
কেউকারাডং
বগা লেক থেকে এগিয়ে ট্রাকিং করে পৌঁছে যেতে পারেন কেউকারাডং। এক সময়ের সর্বোচ্চ পর্বত হিসেবে স্বীকৃত কেউকারাডংকে উচ্চতায় হয়ত হারিয়ে দিয়েছে অন্য অনেক পর্বতেরা কিন্তু এর সৌন্দর্য্য এখনো রয়েছে আগের মতোই অতুলনীয়। বৃষ্টি ধোঁয়া নির্মল সবুজ আর ভেসে বেড়ানো মেঘ মন ভাল করে দেয় নিমিষেই। অনেকে পর্বতটির চূড়ায় রাতে থাকেন। রোমাঞ্চের জন্য খুবই চমৎকার বুদ্ধি, তবে শীতে অসুস্থ হয়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।
 
ফটোসোর্স-travelers-of-bangladesh.blogspot.com
জাদিপাই ঝর্ণা
ঝর্ণা দেখতে বর্ষাই শ্রেষ্ঠ সময়। তবে ভয় থাকে পিচ্ছিল পাথুরে পথের। সাহসে ভর করে পথটা পারি দেওয়া গেলে দেখা মিলবে জাদিপাই এর। ভ্রমণকারীদের মতে জাদিপাই বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর ঝর্ণা। বর্ষায় পরিপূর্ণ যৌবণ পায় ঝর্ণাটি। কখনো কখনো প্রবল বেগে নেমে আসা জলরাশি তৈরি করে রংধনু। কেউকারাডং এর পরে এগিয়ে গেলে সাক্ষাত হবে এই অপরূপার সাথে।
ফটোসোর্স-visitchittagong.net
ডাবল ফলস
বগা লেকের পথ ধরেই ডাবল ফলস। দার্জিলিং পাড়া হয়ে কেওকারাডং, তারপর বাংলাদেশের সর্বোচ্চ গ্রাম পাসিং পাড়া। এরপর আরও সামনে এগিয়ে পোছে যাবেন সুনসান পাড়া। সেখান থেকে আরও কয়েক ঘন্টার ট্রেকিং আপনাকে পোছে দেবে ডাবল ফলস এ। এটিই এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের আবিষ্কৃত একমাত্র দ্বৈত ঝর্ণা। পুরো পথটি কিন্তু এক দিনের নয়। আপনাকে বগা লেকে, কেউকারাডং এ অথবা সুনসান পাড়ায় থাকতে হবে। অন্তত ৫ দিনের ট্যুর এটি। পিচ্ছিল পাথুরে রাস্তা। তাই খুব সাবধানে যেতে হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ