[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

ভারতীয় ভিসা নিয়ে ভোগান্তির অভিযোগে ব্যতিক্রমী ক্যাম্পেইন

প্রকাশঃ April 28, 2016 | সম্পাদনাঃ 28th April 2016

visa_sm_800056795

ফাইল ছবি

(স্বাধীনতা৭১ডটকম) বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশ ভ্রমণের জন্য ভিসা পেতে ভোগান্তি দিন দিন বাড়ছে। বাংলাদেশ থেকে ভারতে টুরিস্ট ভিসা নিতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করে অনলাইনে ব্যতিক্রমী এক ক্যাম্পেইন শুরু করেছেন একদল আগ্রহী পর্যটক। অনলাইন থেকে ই-টোকেন নিতে গিয়ে যে হয়রানির মুখে পড়তে হয় তার প্রতিবাদ জানাতেই এই ক্যাম্পেইন। সংবাদ মাধ্যম বিবিসি বাংলা এক প্রতিবেদনে এমন তথ্যই জানিয়েছে।

অনেক ব্যবসায়ীও এই ক্যাম্পেইনে যোগ দিয়েছেন। তারা সামাজিক মাধ্যমে ইভেন্ট পেজ তৈরি করে এই ক্যাম্পেইন যেমন চালাচ্ছেন, পাশাপাশি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে গণহারে ই-মেইল পাঠাচ্ছেন। সেই ই-মেইলের ভাষা ও বক্তব্য একই।

সেখানে বলা হচ্ছে অনলাইনে ভিসা নিতে গিয়ে সাক্ষাতকারের জন্য ই-টোকেন সংগ্রহ করতে পারছেন না তারা।

কিন্তু ভিসা অফিসের আশেপাশে তৃতীয় একটি পক্ষ সেই টোকেন সরবরাহ করছেন টাকার বিনিময়ে। বিনামূল্যে যে টোকেন পাওয়ার কথা তা কিনতে হচ্ছে হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ করে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ভারতীয় হাই কমিশনসহ ভারতীয় বিভিন্ন কর্মকর্তাদের পাশাপাশি বিভিন্ন শীর্ষস্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে তারা গণহারে ই-মেইল পাঠাচ্ছে।

ট্রাভেলার্স বাংলাদেশ নামে একটি ভ্রমণভিত্তিক ওয়েবপেজকে ঘিরেই এই প্রচারণা। তাদের সদস্য সংখ্যা এক লাখ চল্লিশ হাজারের মতো বলে জানাচ্ছেন সিলেটের বাসিন্দা এ ক্যাম্পেইনের অন্যতম তানভীর রুহেল। তিনি নিজে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর মেইল পাঠিয়েছেন বলেও দাবি করেন।

রুহেল জানান, ফেসবুককে ঘিরেই এই গণহারে ই-মেইল ক্যাম্পেইন শুরু হয়েছে গত ২৩ তারিখ থেকে। চলবে ৩০শে এপ্রিল পর্যন্ত।

তাদের অভিযোগ আগে অনলাইনে ফরম পূরণ করে নিলে ৩/৪ দিনের মধ্যে সাক্ষাতকারের দিন পাওয়া যেত। কিন্তু গত দু’বছর ধরে তারা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেও কোনো সাক্ষাতের দিন পাচ্ছেন না। কিন্তু টাকা খরচ করতে পারলেই সাক্ষাতের দিন পাওয়া যায়।

রুহেল আরও বলেন, ‘আপনি টাকা দিবেন, লাইনে দাঁড়াবেন, সেই লাইনের মধ্যেও দুর্নীতি হয়। আড়াই হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয়।’

ব্যক্তিগতভাবে ব্যবসায়িক প্রয়োজনে প্রায়ই ভারতে যেতে হয় তাকে। তার নিজের ট্যুরিজম প্যাকেজ ব্যবসাও ছিল যা ভিসা জটিলতার কারণে চালাতে পারছেন না বলে তিনি জানান।

সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তারা এই তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে তারা জানাচ্ছেন। এই হয়রানি বন্ধ হলে আরও বেশি পর্যটক ভারতে যেতে পারবেন বলে তিনি মনে করেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ