[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

ভাতঘুমের আদ্যোপান্ত

প্রকাশঃ April 3, 2016 | সম্পাদনাঃ 3rd April 2016
jakia..nap_107857

বাঙালির অতি পছন্দের দুপুরের ভাতঘুম কিংবা পাওয়ার ন্যাপ। কথাটা আমরা অনেকেই শুনেছি। এই ভাতঘুম কিন্তু শুধু আরামের জন্যই নয়। এটিকে ঠিকমতো কাজে লাগানো গেলে নাকি দারুণ বেড়ে যায় কর্মক্ষমতা, স্মৃতিশক্তি। কিন্তু আমাদের অনেকেরই ভাতঘুম সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা নেই। আবার অনেকেই জানি না ঠিক কী ভাবে, কতক্ষণ বিশ্রাম নিলে তা শরীরের পক্ষে উপযোগী। জেনে নিন এমনই কিছু তথ্য।

আগেই বলে রাখছি ভাতঘুম সকলের জন্য নয়। অনেকেই এটির সম্পূর্ণ সুবিধা নিতে পারেন, অনেকেই আবার এর কারণে সমস্যায় পড়েন। সবচেয়ে বড় সমস্যা হল স্লিপ ইনারশিয়া ও রাতে জেগে থাকা। ঘুম থেকে ওঠার পর অনেকেই স্লিপ ইনারশিয়ায় ভোগেন। শরীরের আলস্য কাটিয়ে আবার কাজে ফিরতে অসুবিধা হয়। আবার ঘুমের প্যাটার্নে হঠাৎ পরিবর্তন হওয়ায় রাতে অনেকেই ইনসমনিয়ায় ভোগেন।

ভাতঘুমের বিভিন্ন স্তর রয়েছে। সেগুলো হলো-

প্রথম স্তর: এই স্তর সবচেয়ে কম সময় স্থায়ী হয়। আমরা জাগ্রত অবস্থা থেকে ঘুমের স্তরে পৌঁছে যাই।
দ্বিতীয় স্তর: এই স্তর সবচয়ে দীর্ঘ সময়ের। সরল ও জটিল মোটর স্কিল উন্নত হয়। শক্তি ও স্নায়ুর কর্মক্ষমতা বাড়ে এই স্তরে।
তৃতীয় ও চতুর্থ স্তর: এই সময় শরীরের টিস্যুর ক্ষয়পূরণ হয়, স্ট্রেস কমে, ফ্যাট মেটাবলিজম বাড়ে। অপ্রয়োজনীয় স্মৃতি মুছে গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে কাজ করে মস্তিষ্ক।
র‌্যাপি়ড আই মুভমেন্ট: এটা সর্বোচ্চ স্তর। এই স্তরে শর্ট টার্ম মেমরি, লং টার্ম মেমরিতে রূপান্তরিত হয়। তাই সম্পূর্ণ ঘুমের জন্য এই স্তর পর্যন্ত পৌঁছনো প্রয়োজন।
১০ থেকে ২০ মিনিট সতর্কতা ও এনার্জি বাড়ানোর জন্য এই পাওয়ার ন্যাপ আদর্শ। যেহেতু কম সময়ের ঘুমে নন-র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট স্লিপের সময় কমে। ফলে ঘুম থেকে ওঠা সহজ হয়। সেই সঙ্গে যেহেতু এই সময়ের মধ্যে আমরা ঘুমের দ্বিতীয় স্তরে পৌঁছে যেতে পারি তাই সারা দিনের স্ট্যামিনাও বাড়ে।
৩০ মিনিট এই সময়ের মধ্যে আমরা দ্বিতীয় স্তরে পৌঁছে যাই। শরীর তৃতীয় ও চতুর্থ স্তরে গিয়ে ঘুম সম্পূর্ণ করতে চায় কিন্তু তার আগেই উঠে পড়লে স্লিপ ইনারশিয়া, হ্যাঙ্গওভারের মতো অনুভূতি হয়।
৬০ মিনিট ঘটনা, চেহারা ও নাম মনে রাখার জন্য এই সময়সীমার হালকা ঘুম সবচেয়ে উপকারী। যদিও ঘুম ভাঙার পর একটু অলস লাগে।
৯০ মিনিট এটা ঘুমের সম্পূর্ণ সাইকেল। যেখানে হালকা ও গভীর স্তরে পৌঁছে যাই। এতে ইমোশন যেমন উন্নত হয়, তেমনই স্মৃতিশক্তি ও সৃজনশীলতাও বাড়ে। ৯০ মিনিট ঘুমোলে স্লিপ ইনারশিয়ার সম্ভাবনা যেমন কম, তেমনই ঘুম থেকে উঠে পড়াও সহজ হয়।

এই বিভাগের আরো সংবাদ