[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

বিয়ের আসরে হঠাৎ হাজির প্রথম স্ত্রী

প্রকাশঃ May 18, 2016 | সম্পাদনাঃ 18th May 2016

BASOR_bg20160518074324প্রথম স্ত্রীর অনুমতি না নিয়ে এক স্কুলছাত্রীকে বিয়ে করতে গিয়েছিলেন নাজমুল আলম (৩০)। প্রথম স্ত্রী ওই বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির হলে বিষয়টি জানাজানি হয়। গণধোলাই দেওয়া হয় নাজমুলকে। পরে জরিমানা ও মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান তিনি।

সোমবার সন্ধ্যায় চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নাজমুল সাত বছর আগে মাহমুদা আক্তারকে বিয়ে করেন। তাদের পাঁচ বছরের একটি ছেলে রয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় মাহমুদার অনুমতি ছাড়াই নাজমুল কয়েকজন লোক নিয়ে গোপনে এক স্কুলছাত্রীকে (১৩) বিয়ে করতে যান।

ওই ছাত্রী স্থানীয় একটি স্কুলের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী। খবর পেয়ে নাজমুলের স্ত্রী মাহমুদা ওই ছাত্রীর বাড়িতে যান। সেখানে গিয়ে তিনি দেখতে পান তার স্বামী বর সেজে আছেন। সেখানে তাদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়।

উপস্থিত লোকজন মাহমুদার কাছে ঘটনা শুনে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। নাজমুলকে গণধোলাই দিয়ে ওই বাড়ির একটি ঘরে আটকে রাখা হয়। পালিয়ে যান নাজমুলের সঙ্গীরা। পরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সেখানে এক বৈঠক হয়। বৈঠকে নাজমুলের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকার জরিমানা আদায় করা হয়। পরে মুচলেকা আদায় করে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

নাজমুল আলম বলেন, তার ভুল হয়ে গেছে। ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করবেন না। ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বলেন, নাজমুল আগের বিয়ের কথা গোপন করে তার মেয়েকে বিয়ে করতে চেয়েছেন। এটি একটি প্রতারণা। ভবিষ্যতে বুঝে-শুনে মেয়েকে বিয়ে দেবেন।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শহীদ উল্যাহ প্রধান বলেন, ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়েছে। অল্প বয়সে মেয়েকে বিয়ে না দেওয়ার জন্য ওই ছাত্রীর মা-বাবাকে অনুরোধ করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ