[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

আজ বিশ্ব বাবা দিবস ।

প্রকাশঃ June 19, 2016 | সম্পাদনাঃ 19th June 2016

 

আজ ১৯ জুন-২০১৬ ‘বিশ্ব বাবা দিবস’। পৃথিবীর সব বাবাদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের ইচ্ছায় প্রতিবছর জুন মাসের তৃতীয় রোববার বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এ দিবস উদযাপিত হয়। তারই ধারাবাহিকতায় আজ উদযাপিত হবে ‘বিশ্ব বাবা দিবস’।

বিশ্ব বাবা দিবস এর ইতিহাস সম্পর্কে জানা গেছে, বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে বাবা দিবস পালন শুরু হয়। আসলে মায়েদের পাশাপাশি বাবারাও যে তাদেরে সন্তানের প্রতি দায়িত্বশীল- এটা বোঝানোর জন্যই এই দিবসটি পালন করা হয়। পৃথিবীর সব বাবাদের প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের ইচ্ছে থেকে যার শুরু। ধারণা করা হয়, ১৯০৭ সালের একটি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো ২শ’১০ জন বাবার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়ে প্রথম ১৯০৮ সালরে ৫ই জুলাই, আমেরিকার পশ্চিম ভার্জেনিয়ার ফেয়ারমন্টের এক গির্জায় এই দিনটি প্রথম পালিত হয়। এর তার দুই বছর পর ১৯১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সেনোরা স্মার্ট ডট নতুন পরিসরে বাবা দিবস পালন করে। সেনোরাকেই বাবা দিবসের উদ্যোক্তা মনে করা হয়। ডট তার বাবার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালবাসা প্রকাশে সর্ম্পূণ নিজ উদ্যোগেই পরের বছর, অর্থাৎ ১৯ জুন, ১৯১০ সাল থেকে বাবা দিবস পালন করা শুরু করেন।

প্রথম প্রথম এ দিবসটি অনেকের কাছেই হাস্যকর ছিল। ধীরে ধীরে অবস্থার পরিবর্তন হয়। ১৯১৩ সালে আমেরিকার সংসদে বাবা দিবসকে ছুটির দিন ঘোষণা করার জন্য একটা বিল উত্থাপন করা হয়। ১৯২৪ সালে তৎকালীন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ক্যালভিন কুলিজ বিলটিতে পূর্ণ সর্মথন দেন। অবশেষে ১৯৬৬ সালে প্রেসিডেন্ট লিন্ডন বি. জনসন বাবা দিবসকে ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করেন। সেই থেকে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে জুন মাসের তৃতীয় রোববার বাবা দিবস হিসেবে উদযাপিত হয়।

তাছাড়া বাবা দিবস উদযাপনের ফলে সমাজে এবং পরিবারে বাবাদের যে অবদান তা যে সমাজ এবং নিজের সন্তানরা মূল্যায়ন করছে, এ বিষয়টিও বাবাদের বেশ আনন্দ দেয়। তাছাড়া  অনেক সন্তান আছে, যারা বাবা মায়ের দেখাশোনার প্রতি খুব একটা মনোযোগী নয়। এ দিবস তাদের চোখের সামনের পর্দাটি খুলে ফেলে বাবা- মায়েরে প্রতি তার দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। এ ক্ষেত্রে তাই বলা যায়, পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করতে এ দিবস উদযাপনের গুরুত্ব রয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ