[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

বিএনপি-জামায়াত গুপ্তহত্যা চালাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশঃ April 30, 2016 | সম্পাদনাঃ 30th April 2016

pm-7

গোপালগঞ্জ: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত প্রকাশ্যে মানুষ হত্যা করে সরকার পতনে ব্যর্থ হয়ে এখন তারা গুপ্তহত্যা চালাচ্ছে। তারা বেছে বেছে মানুষ হত্যা করছে।

আজ শনিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ঘোনাপাড়ায় শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এক সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সমাবেশের আগে তিনি অত্যাধুনিক এই হাসপাতালের উদ্বোধন করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত দেশের উন্নয়ন চায় না। হত্যাকাণ্ড ও ধ্বংস ছাড়া তারা আর কিছু পারে না। আর আওয়ামী লীগ জাতির পিতার নেতৃত্বে স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করছে।

আওয়ামী লীগের লক্ষ্য দেশের সুষম উন্নয়ন এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দুর্নীতি করে ভাগ্য গড়তে আসিনি। আমি জাতির পিতার কন্যা। রাজনীতি করছি নিজের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য নয়, মানুষের কল্যাণে। বাকিটা জীবন সেটাই করে যাবো।

শেখ হাসিনা বলেন, এই দেশের মানুষের জন্য আমার বাবা-মা-ভাই-বোন সবাই জীবন দিয়ে গেছেন। আমি সব হারিয়েছি, আমার তো আর হারাবার কিছু নেই। চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। এখন এদেশের মানুষের জন্য কিছু করতে চাই।

‘বাংলাদেশের উন্নয়নকে অনেকে বিস্ময় বলেন, আমি বলি এটি বিস্ময় নয়, বিশ্বাস। জনগণের প্রতি বিশ্বাস। এই বিশ্বাস আছে বলেই দেশে উন্নতি করতে পারছি; নিয়ত ভালো বলেই যেখানেই হাত দিচ্ছি সেখানেই সাফল্য অর্জন করছি’।

বিএনপি-জামায়াত পদ্মাসেতু নিয়ে যদি ষড়যন্ত্র না করতো তবে এ সেতুর কাজ এতো দিনে আরও এগিয়ে যেতো বলেও মত দেন শেখ হাসিনা।

স্বাস্থ্যখাতে তার সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখাতে উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। আরও তিনটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ করছি। এছাড়া প্রতিটি বিভাগে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হবে। গণমুখী স্বাস্থ্য নীতি দিয়েছিলাম, সে অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি। এখন এমন সময় এসেছে যেখানে নার্সরাও পিএইচডি করতে পারবেন, আমরা সে সুযোগ করে দিয়েছি।

‘বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায়-জেলায় সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় করে দিচ্ছি। উচ্চ শিক্ষাপর্যন্ত মেধাবৃত্তি দিয়ে যাচ্ছি ১ কোটি ৭০ লাখ ছাত্র-ছাত্রীকে। আজকে বই-খাতা কিনতে হয় না, আমরা সবই দিচ্ছি। দেশে এখন ৩ কোটি ৮৪ লাখ মেট্রিক টন খাদ্য নিরাপত্তা হয়েছে। মানুষের চাহিদা বদলে গেছে কারণ পেটে খাবার আছে। এখন মানুষ বিদ্যুৎ চায়, স্কুল চায়- আমরা তা করছি’।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক সময় গোপালগঞ্জবাসী বৈরিতার শিকার ছিল। অবহেলিত ছিল। সেটি হয়েছিল একটি বিশেষ কারণে। সে সময় বাজেটে টাকা দেওয়া হতো, তবে কাজ ও উন্নয়ন হতো না। এক সময় এখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ও সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা দেশে উন্নয়ন চায় না, এটাই বাস্তবতা। তারা পারে শুধু মানুষ পোড়াতে; গুপ্তহত্যা করতে। হত্যা আর ধ্বংস ছাড়া তারা আর কিছুই করে না । জাতির পিতার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ স্বাধীনতা এনে দিয়েছে, আমরাই দেশে উন্নয়ন করেছি-করে যাচ্ছি।

নতুন প্রতিষ্ঠিত শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, আশা করি এই চিকিৎসাকেন্দ্র মানবসেবায় অবদান রাখবে। আমি আরেক দিন এসে এখানে চোখ দেখিয়ে যাবো।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ