[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম রাখাইন শিক্ষক ’উচিং লয়েন’

প্রকাশঃ July 28, 2016 | সম্পাদনাঃ 28th July 2016

ঢাকা:: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেছেন উচিং লয়েন। রাখাইন নৃগোষ্ঠীর মধ্য থেকে যেকোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম এবং একমাত্র শিক্ষককে নিয়ে লিখেছেন পিন্টু রঞ্জন অর্ক।

বাড়ি তাঁর বরগুনার তালতলী উপজেলার ছাতনপাড়ায়। মা-বাবার একমাত্র সন্তান উচিং লয়েন। মা আবু গৃহিণী, বাবা চিন তেন তালতলীর বৌদ্ধ বিহারের শিক্ষক। তাঁর আয়েই টেনেটুনে চলে যেত সংসার। ছোটবেলা থেকে পড়ালেখার প্রতি লয়েনের খুব ঝোঁক। প্রথম শ্রেণি থেকে প্রথম হওয়াটি যেন নিয়ম বানিয়ে ফেলেছিলেন। ফলে প্রথম শ্রেণি থেকে এইচএসসি পর্যন্ত বিনা বেতনে পড়েছেন।

২০০৫ সালে তালতলী মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, দুই বছর পর তালতলী ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছেন। দুটিতেই জিপিএ ৫। বরিশাল বোর্ড থেকে এইচএসসির রেজাল্টের ওপর ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছেন। তিনি ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ছাত্র ছিলেন। এইচএসসি পাসের পর বন্ধুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য কোচিং করছে দেখে তাঁরও মন চাইল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বেন। তবে কোচিংয়ের টাকা জোগাড় করতে পারলেন না বাবা। তখন পাশে এসে দাঁড়ালেন কাকি, ‘টাকা-পয়সা যা লাগে আমি দেব। তুমি শুধু মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করো।’ ঢাকায় এসে কোচিং করে ‘সি’ ইউনিটে চান্সও পেলেন। শেষে দূরসম্পর্কের এক কাকার সাহায্যে ২০০৭-০৮ শিক্ষাবর্ষে নতুন চালু হওয়া ‘ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টে’ ভর্তি হলেন। প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী লয়েনের ঠিকানা হলো জগন্নাথ হল। প্রথমদিকে মানিয়ে নিতে পারতেন না। হলের খাবার খাওয়া যেত না। মায়ের কথা মনে করে কাঁদতেন। ঠিকমতো চলার পয়সাও নেই। প্রথম দুই বছর টিউশনি পেলেন না। এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে ছেলের লেখাপড়ার খরচ দিলেন মা। মায়ের এই কষ্টে তাঁরও মন খারাপ হতো। ফলে লেখাপড়াও ভালো হলো না। প্রথম বর্ষের ফলাফলের পর দেখা গেল, প্রথম তিনজনের মধ্যে নেই। ফলে জেদ চেপে বসল। নিয়মিত ক্লাস করলেন, লেকচার টুকে রাখলেন, লাইব্রেরি বা নেট থেকে রেফারেন্স খুঁজে বের করে পড়লেন। রুমেই পড়েছেন বেশি। অনার্সে প্রথম শ্রেণিতে চতুর্থ হলেন। মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণিতে দ্বিতীয়। এই মেধাবী ছাত্রটি অনার্সের ফলাফলের জন্য ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ‘ডিনস অ্যাওয়ার্ড’, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট শিক্ষাবৃত্তি’ পেয়েছেন।

খেলাধুলায়ও ভালো করেছেন লয়েন। স্কুলে ‘যেমন খুশি তেমন সাজো’তে প্রথম হয়েছিলেন। কলেজে কুইজ প্রতিযোগিতায় পর পর তিনবার প্রথম। ফুটবলার হিসেবে বিভাগ ও হলের বেশ কটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। ২০১৫ সালের ১ জুলাই রাখাইন নৃগোষ্ঠীর প্রথম মানুষ হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। উচিং লয়েনই এ দেশের যেকোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম রাখাইন শিক্ষক। যখন নিয়োগপত্র হাতে পেলেন কেমন লাগছিল? তিনি বললেন, ‘স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছিল। কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। প্রথমে বাবাকে ফোন দিলাম—বাবা, আমার তো হয়ে গেছে। মায়ের সঙ্গে কথা হয়নি। খালি মায়ের কান্নার আওয়াজ শুনছিলাম।’

২ আগস্ট থেকে প্রভাষক হিসেবে ক্লাস নেওয়া শুরু করেছেন। সেদিন ক্লাসে যাওয়ার আগে একটু নার্ভাস ছিলেন। পরে নিজেকে বলেছেন, ‘কিছুদিন আগেও এই ক্লাসরুমে বসতাম, সবই তো পরিচিত। ভয় কিসের?’ তবে ক্লাসে ঢোকার পর ছাত্রছাত্রীরা তাঁকে দেখে বেশ অবাক হয়েছে বলে মনে হলো তাঁর। নানা প্রশ্ন করল, হাসিমুখে সবগুলোর জবাব দিলেন। সব স্বাভাবিক হয়ে এলো। বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শাকের আহমেদ উচিং লয়েন সম্পর্কে বললেন, ‘ও তো সবে শুরু করেছে। এই কদিনে যা দেখলাম, তাতে মনে হয়েছে—আমরা প্রতিশ্রুতিশীল একটি ছেলে পেয়েছি। ও ভালো করবে।’ যে হলে ছাত্র হিসেবে পাঁচটি বছর কাটিয়েছেন, সেখানে এ বছরের ৫ জানুয়ারি আবাসিক শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক অসীম কুমার সরকার বললেন, ‘ও আমাদের সম্পদ। দারুণ সম্ভাবনাময় শিক্ষক।’

বিভাগ ও হল নিয়ে এখন ব্যস্ত লয়েন। ভবিষ্যতে পিএইচডির জন্য অস্ট্রেলিয়া যেতে চান। তাঁর বিশ্বাস, ‘রাখাইনদের মতো প্রান্তীয় মানুষেরও ভালো কিছু করার সামর্থ্য আছে। কেবল সুযোগ পাওয়া দরকার।’

তাঁর একটিই দুঃখ, যে কাকির টাকায় তিনি ঢাকায় পড়তে এসেছিলেন, তিনি আর বেঁচে নেই। ‘চান্মে’ তালতলী ডিগ্রি কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার সময়গুলোতে তিনি তাঁকে সাহস দিয়েছেন, উৎসাহ জুগিয়েছেন। কাকির কথা মনে করে লয়েনের চোখে জল এলো, ‘আমার দুই মা। একজন জন্মদাত্রী, অন্যজন কাকিমা। তাঁর কারণেই আমি এই পর্যায়ে এসেছি। তবে আমার শিক্ষকতা জীবনের মাস তিনেকের মাথায় কাকিমা চিরবিদায় নিয়েছেন।’

 

স্বাধীনতা৭১ডটকম/প্রচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ