[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার পরবর্তী শুনানি ৯ মে

প্রকাশঃ May 2, 2016 | সম্পাদনাঃ 2nd May 2016

7-mader

নারায়ণগঞ্জ: জেলার চাঞ্চল্যকর সাত খুনের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নিহত নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারের প্রাইভেটকার উদ্ধারকারী ৪ পুলিশ সদস্যসহ সাতজন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টা হতে ১১টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে গ্রেফতার ২৩ আসামির উপস্থিতিতে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। পরে আদালত সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৯ মে দিন ধার্য করেন।

আজ যাদের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে তারা হলেন- রাজধানীর গুলশান নিকেতন থেকে নিহত অ্যাডভোকেট চন্দন সরকারের গাড়ি উদ্ধারকারী উপ পরিদর্শক (এস আই) ওয়াহিদুজ্জামান, সাত খুনের ঘটনার পর গাজীপুর থেকে নিহত কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের প্রাইভেটকার উদ্ধারকারী পুলিশের উপ পরিদর্শক (এস আই) রিয়াজুল হক, কনস্টেবল বদরুল আলম, ওই এলাকার মোক্তার হোসেন ও আনোয়ার হোসেন, গুলশান থানার কনস্টেবল সেলিম রেজা ও সাত খুনের ঘটনায় নিহত মনিরুজ্জামানের স্ত্রী মোর্শেদা আক্তার।

সাক্ষ্যপ্রদানের একপর্যায়ে নিহত মনিরুজ্জামানের স্ত্রী মোর্শেদা আক্তার সাত খুনের ঘটনায় গ্রেফতার নূর হোসেনসহ আসামিদের মৃত্যুদণ্ড দাবি করেন।

নারায়ণগঞ্জ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন জানান, সোমবার ৭ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে। আগামী ৯ মে অন্যদের সাক্ষ্য নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন ও গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম এবং আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহীম অপহৃত হন। পরে ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ছয়জনের ও ১ মে একজনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ