[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

ধর্ষণে ফাঁসির আইন হচ্ছে ভারতে

প্রকাশঃ April 21, 2018 | সম্পাদনাঃ 21st April 2018

স্বাধীনতা৭১  আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ 

বিদেশ থেকে ফিরেই ১২ বছর পর্যন্ত শিশুর ধর্ষণে ফাঁসির সাজা হওয়ার বিল পাস করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লন্ডনে প্রবাসী ভারতীয়দের সভায় কাঠুয়া গণধর্ষণকাণ্ড নিয়ে প্রথম মুখ খুলেছিলেন তিনি। সর্বসমক্ষে বলেছিলেন ধর্ষণটা ধর্ষণই, এই নিয়ে রাজনীতি করা ঠিক নয়। এর জন্য সরকারকে দায়ী করা অমূলক। ধর্ষণ রোধে কড়া পদক্ষেপ করার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সেখানেই।

যে বিলটি ভারতের মন্ত্রিসভায় পাস হয়েছে তাতে বলা হয়েছে ১২ বছরের কম বয়সী শিশুর ধর্ষণে পক্সো আইনে মামলা দায়ের হবে এবং সর্বোচ্চ সাজা ফাঁসি দেওয়া হবে। বিলটি মন্ত্রিসভায় পেশ করেন দেশটির নারী ও শিশু কল্যাণমন্ত্রী মানেকা গান্ধী। বিলটি এবার সংসদের দুই কক্ষে পাস হলেই আইনে পরিণত হবে।

সংগৃহীত

কাঠুয়া গণধর্ষণকাণ্ড নিয়ে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পরেই এই নিয়ে কড়া পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। প্রধানমন্ত্রীর লন্ডন সফরের মধ্যেই তৈরি হয়ে যায় খসড়া বিল। তারপর সেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে পাঠানো হয়। সেখান থেকেই শনিবার পেশ করা হয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। সেখানে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তেই পাস হয়ে যায় বিলটি। তাতে সিলমোহর দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদিও এর আগেই রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা রাজ্য সরকার শিশু ধর্ষকদের ফাঁসির সাজা দেওয়ার আইন জারি করে ফেলেছে। কেন্দ্রের বোধদয় অনেক পরে হল বলা চলে।

উন্নাওয়ে বিজেপিরই দলীয় বিধায়কের বিরুদ্ধে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ রেয়েছে। সেই নিয়ে একটু বেকায়দায় রয়েছে উত্তর প্রদেশের যোগী সরকার। কাঠুয়া গণধর্ষণ কাণ্ডের পরেও বিজেপির দুই বিধায়ক অভিযুক্তদের পাশে দাঁড়িয়ে একাধিক বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন। যার জেরে জম্মু–কাশ্মীর মন্ত্রিসভা থেকে দুই বিজেপি বিধায়ককে পদত্যাগ করতে হয়। মোটের উপর কাঠুয়া এবং উন্নাও দুই কাণ্ডের যৌথ আক্রমণে রীতিমত বেকায়দায় পড়েছিল মোদি সরকার। চাপে পড়েই বলা চলে মোদির মন্ত্রিসভার এই বিল পাস করেছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ