[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

দিল্লির তিন মাদ্রাসা ছাত্রকে ধর্মীয় স্লোগান ‘জয় মাতাদি’ বলতে বলে মারধর করেছে বলে অভিযোগ

প্রকাশঃ April 2, 2016 | সম্পাদনাঃ 2nd April 2016

delhi-madrassa-students_650x400_41459309613

অভিযোগকারী ওই তিনছাত্রের মধ্যে ১৮ বছর বয়সী মোহাম্মদ দিলকাশের হাত ভাঙা ছিল বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

শনিবার সন্ধ্যায় দিল্লির একটি পার্কে এ ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছে দিলকাশ।

তিনি বলেন, “আমরা কাছের পার্কে গিয়েছিলাম। কয়েকজন মানুষ এসে আমার এক বন্ধুকে থাপ্পর মেরে আমাদের মারতে শুরু করে। আমরা তাদের চিনি না, কিন্তু দেখলে চিনতে পারবো। তারা আমাদের ‘জয় মাতাদি’ ও ‘জয় ভারত’ বলতে বলে, না হলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।”

লোকগুলো যা দাবি করেছে তা তারা বলেছে কীনা জানতে চাইলে দিলকাশ বলেন, “না, আমরা বলিনি। তারা আমাদের কোনো সুযোগই দেয়নি। আমরা হাফিজ জি (শিক্ষক) কে ডাক দেই, তখনই পুলিশ আসে।”

দিলকাশের বন্ধু, যাকেও পেটানো হয়েছে বলে অভিযোগ, তিনি জানান, টুপি খুলে ফেলতে বলে তাকে থাপ্পর মারা হয়, এরপর মারধর করা হয়।

“তারা আমার টুপি খুলে নিয়ে পা দিয়ে মাড়িয়ে দেয়,” বলেন তিনি।

জানা গেছে, ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার পর ছাত্ররা তাদের লাঠি দিয়ে মারা হয়েছে বলে অভিযোগ করে।

পুলিশ জানায়, অভিযোগকারী তরুণদের বক্তব্যে অসঙ্গতি আছে। দুটি দল একই এলাকায় থাকে, পরস্পরকে চিনে এবং ক্রিকেট খেলার সময় তাদের মধ্যে মারামারি বাধে।

পুলিশ আরও জানায়, ছাত্ররা তাদের অভিযোগে বলেছে, তাদের ‘জয় মাতাদি’ বলে স্লোগান দিতে বলা হয়েছে, কিন্তু পরে তাদের ভাষ্য পাল্টে তাদের ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলে স্লোগান দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছে।

‘ভারত মাতা কি জয়’- স্লোগান নিয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে ভারতের রাজনৈতিক অঙ্গনে বিতর্ক চলছে। এই স্লোগান না দেয়ায় মহারাষ্ট্র বিধানসভার এক মুসলিম বিধায়ককে পদত্যাগে বাধ্য করেছেন তার সহবিধায়কেরা, এমন অভিযোগ আছে।

তরুণ ছাত্রদের অভিযোগের বিষয়ে মঙ্গলবার মামলা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ