[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

জুলহাজ-তনয় হত্যাকাণ্ডে নেতাসহ ৩ জন শনাক্ত: মনিরুল

প্রকাশঃ May 15, 2016 | সম্পাদনাঃ 15th May 2016
Feature Image(স্বাধীনতা৭১ডটকম)

ঢাকা: আমেরিকান দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব রাব্বী তনয়কে হত্যার দু’মাস আগে পরিকল্পনা করেছে খুনিরা। আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের আধ্যাত্মিক নেতাদের নির্দেশে চূড়ান্ত পরিকল্পনা করা হয়।

এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার হওয়া শরীফুল ইসলাম ওরফে শিহাব পুলিশের কাছে একথা স্বীকার করেছে।

আজ রোববার দুপুরে মিন্টু রোডে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম প্রধান মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের এসব কথা জানিয়েছেন। গত ২৫ এপ্রিল কলাবাগানে লেক সার্কাসের বাসায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত এ কমিশনার আরও বলেন, ‘ঘটনার পর নিহতের স্বজন এবং পুলিশ বাদি হয়ে পৃথক আইনে মামলা দায়ের করে। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে উদ্ধার হওয়া অস্ত্রে হাতের ছাপ দিয়ে শিহাবের জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। এরপরই শিহাবকে কুষ্টিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে অন্য আসামিদের গ্রেফতারের জন্য তাকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করা হয় । শনিবার রাতে তাকে আবার ঢাকায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে শিহাব স্বীকার করেছে সে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের আধ্যাত্মিক নেতাদের নির্দেশে এবং ইসলামকে রক্ষা করতেই তারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। কেননা, তারা দু’জন ছিল সমকামি যা ইসলাম কখনোই সমর্থন করে না। এ কারণে ঈমানি দায়িত্ব নিয়ে শিহাব ঘটনার ২ মাস আগে ঢাকায় আসে। এখানে এসে হত্যার পরিকল্পনা করে অন্যদের সঙ্গে। তারই অংশ হিসেবে তারা জুলহাজ ও তনয়কে গত পয়লা বৈশাখে হত্যার পরিকল্পনা করে। ওই দু’জনকে বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই নজরে রাখতে থাকে। কিভাবে খুন করা হবে তার জন্য রেকিও করে। এই হত্যাকাণ্ডের পর সে কুষ্টিয়ায় চলে যায় অপর একজনকে হত্যা করার জন্য।

এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘অস্ত্র বা অন্য গোলাবরুদ তারা মূলত নিজেদের রক্ষা করার জন্য সঙ্গে আনে। এগুলো দিয়ে তারা কখনো মানুষ খুন করে না। আর শিহাব আগে হরকাতুল জিহাদের সঙ্গে জড়িত ছিল। ২০১৫ সালে ঈমানি দায়িত্ব নিয়ে আনসারউল্লাহ বাংলা টিমে অংশগ্রহণ করে। সে কুষ্টিয়া অঞ্চলে এ টিমের একটি ইউনিটের দায়িত্বে আছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মনিরুল বলেন, ‘এ ঘটনায় ৩ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। শিহাবকে রিমান্ডে নিয়ে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিস্তারিত বেড়িয়ে আসবে।’

এই বিভাগের আরো সংবাদ