[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

জনতা ব্যাংকে বিভিন্ন পদে ২২২৯টি চাকুরির বিজ্ঞপ্তি ও প্রস্তুতি

প্রকাশঃ April 26, 2016 | সম্পাদনাঃ 26th April 2016

janata-bank-job

ক্যারিয়ার ডেস্ক : জনতা ব্যাংকে বিভিন্ন পদে ২২২৯টি চাকুরির বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। সঙ্গে থাকছে স্বাধীনতা৭১ডটকম পাঠকদের জন্য প্রস্তুতি।

জনতা ব্যাংকে এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে ৮৩৪ জন, অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে ৪৬৪ জন, অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-টেলার পদে ৫৩৬ জন ও অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-পল্লী ঋণ পদে ৩৯৫ জনসহ মোট ২২২৯ জন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হবে। রাষ্ট্রায়ত্ত ও বিশেষায়িত ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা নিয়োগের জন্য ‘ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি’ গঠন করেছে সরকার। এর আলোকে বাংলাদেশ ব্যাংক পত্রিকায় ভিন্ন ভিন্ন চারটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

আবেদনের যোগ্যতা : অ্যাকাডেমিক পরীক্ষায় কমপক্ষে দু’টি প্রথম বিভাগসহ চার বছরমেয়াদি স্নাতক সম্মান বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি থাকলে এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে আবেদন করা যাবে। অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে আবেদনের জন্য কমপক্ষে একটি প্রথম বিভাগসহ চার বছরমেয়াদি স্নাতক সম্মান বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি, অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-টেলার পদে ন্যূনতম দ্বিতীয় শ্রেণীর চার বছরমেয়াদি স্নাতক সম্মান বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-পল্লী ঋণ পদে আবেদনের জন্য স্নাতক ডিগ্রি থাকতে হবে। শিক্ষাজীবনে কোনো তৃতীয় বিভাগ বা শ্রেণী পেলে কোনো পদেই আবেদন করা যাবে না।

অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-পল্লী ঋণ বাদে সব পদে আবেদনকারী প্রার্থীদের কম্পিউটার জ্ঞান থাকতে হবে। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ক্ষেত্রে জিপিএ ৩ বা তদূর্ধ্ব প্রথম বিভাগ, জিপিএ ২ থেকে ৩-এর কম দ্বিতীয় এবং জিপিএ ১ থেকে ২-এর কম হলে তৃতীয় বিভাগ ধরা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে সিজিপিএ ৪ পয়েন্ট স্কেলে সিজিপিএ ৩.০০ বা তদূর্ধ্ব প্রথম বিভাগ বা শ্রেণী, ২.২৫ বা তদূর্ধ্ব কিন্তু ৩-এর কম দ্বিতীয়, ১.৬৫ বা তদূর্ধ্ব কিন্তু ২.২৫-এর কম তৃতীয় বিভাগ বা শ্রেণী ধরা হবে। সিজিপিএ ৫ পয়েন্ট স্কেলে সিজিপিএ ৩.৭৫ বা তদূর্ধ্ব প্রথম, সিজিপিএ ২.৮১৩ বা তদূর্ধ্ব কিন্তু ৩.৭৫-এর কম দ্বিতীয় এবং সিজিপিএ ২.০৬৩ বা তদূর্ধ্ব কিন্তু ২.৮১৩-এর কম হলে ধরা হবে তৃতীয় বিভাগ বা শ্রেণী।
বয়সসীমা : ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে প্রার্থীর বয়স হতে হবে ২১ থেকে ৩০ বছর। মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর।
অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ : এক্সিকিউটিভ অফিসার ও অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে ইতোমধ্যে অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে ১০ এপ্রিল ২০১৬ পর্যন্ত এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে আবেদন করা যাবে ১৭ এপ্রিল ২০১৬ পর্যন্ত। অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-টেলার পদে ২৪ এপ্রিল ২০১৬ পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করা যাবে। অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-পল্লী ঋণ পদে ১০ এপ্রিল থেকে ১ মে ২০১৬ পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।
অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করা : এসব পদে আবেদন করতে হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে গিয়ে (www.erecruitment.bb.org.bd) অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন ফরম পূরণের মাধ্যমে। ফরম পূরণ করার নিয়ম ও শর্তাবলি ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। অনলাইনে আবেদন করার পর প্রাপ্ত Tracking Number Formটি যথাযথভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। প্রার্থীদের প্রাথমিকভাবে কোনো কাগজপত্র পাঠাতে হবে না। বিবাহিত মহিলা প্রার্থীদের ক্ষেত্রে স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে স্বামীর স্থায়ী ঠিকানা ব্যবহার করতে হবে।

নিয়োগ পদ্ধতি : প্রার্থীদের আবেদনপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর ধাপে ধাপে এমসিকিউ, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। প্রার্থীদের প্রথমে ১০০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। এমসিকিউ পরীক্ষার সময় ১ ঘণ্টা। এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের এরপর ১০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। এমসিকিউ পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। লিখিত পরীক্ষায় সাধারণত বাংলা, ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। লিখিত পরীক্ষার সময় ২ ঘণ্টা। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের আবার ২৫ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। মৌখিক পরীক্ষায় প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, আচরণ দেখা হয় ও ইংরেজি, ব্যাংকিং, সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে।

বেতন স্কেল ও সুবিধা : চূডান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীরা অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার (এইও), অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-টেলার (এইও-টেলার) এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার-পল্লী ঋণ (এইও-আরসি) পদে জাতীয় বেতন স্কেল-২০১৫ অনুযায়ী ১৬০০০/-৩৮৬৪০/- টাকা স্কেলে ও এক্সিকিউটিভ অফিসাররা ২২০০০/- টাকা স্কেলে বেতন ও অন্যান্য সুবিধা পাবেন।

পরীক্ষার প্রস্তুতি : বাংলা : এমসিকিউ পরীক্ষায় বাংলা ব্যাকরণ ও সাহিত্য থেকে প্রশ্ন আসে। ব্যাকরণ অংশে বাগধারা, এক কথায় প্রকাশ, শুদ্ধ-অশুদ্ধ, সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দ, সন্ধিবিচ্ছেদ, সমাস, পারিভাষিক শব্দ, সাহিত্য থেকে কবি-সাহিত্যিকদের জীবনী বা বিভিন্ন কবিতার পঙ্ক্তি আসতে পারে। লিখিত পরীক্ষায় থাকবে ভাবসম্প্রসারণ, সারাংশ, অনুচ্ছেদ লিখন ও বাংলা থেকে ইংরেজি অনুবাদ লিখন। অনুচ্ছেদ লিখনের বিষয় হতে পারে সাম্প্রতিক কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা, ব্যাংকিং বা অর্থনীতি বিষয়ের ওপর।
ইংরেজি : Fill in the blanks, Synonym, Antonym, Phrases and Idioms, Tense, Correct Spelling, Sentence Correction, Analogy থেকে প্রশ্ন আসে এমসিকিউ পরীক্ষায়। লিখিত পরীক্ষায় আসতে পারে ফোকাস রাইটিং ও অনুবাদ। ফোকাস রাইটিংয়ের জন্য জায়গা নির্ধারিত থাকে।
গণিত : এমসিকিউ পরীক্ষায় নবম-দশম শ্রেণীর বই থেকে পাটিগণিত ও বীজগণিতের অঙ্কের সমাধান অনুশীলন করতে হবে। এমসিকিউ অংশে সহজে উত্তর করার জন্য শর্টকার্ট টেকনিক ব্যবহার করে অঙ্কের সমাধান নিয়মিত চর্চা করতে হবে। লিখিত অংশে গণিতে যে সব প্রশ্ন আসে, তা ঠিকভাবে সমাধান করতে পারলে পুরো নম্বর পাওয়া সম্ভব। পুরো অঙ্ক ধাপে ধাপে করতে হবে।
সাধারণ জ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি : সাধারণ জ্ঞানে সাম্প্রতিক বিষয়াবলি থেকে বেশি প্রশ্ন হয়। তথ্যপ্রযুক্তির জন্য কম্পিউটার সম্পর্কে মৌলিক ধারণা, হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার সম্পর্কে পড়তে হবে।
পরীক্ষার তারিখ : এসব পদে নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানানো হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ