[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

চীন থেকে দেশে ফেরা পাইলটদের অন্য দেশে ঢোকায় নিষেদাজ্ঞা

প্রকাশঃ February 3, 2020 | সম্পাদনাঃ 3rd February 2020

সম্প্রতি চীন হতে ৩১৪ জন যাত্রী নিয়ে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট। সেই ফ্লাইট পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত পাইলট ও ক্রুদের অন্য দেশে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। যার কারনে তারা আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে কয়েকটি দেশ, চীনফেরত পাইলটদের তাদের দেশে ঢুকতে দেবে না বলে জানিয়েছে। যার দরুন চীন থেকে দেশে ফিরতে চাওয়া ১৭১ জন বাংলাদেশী নাগরিককে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না।

সোমবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে নভেল করোনাভাইরাস নিয়ে একটি বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

এসময় মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কেবিনেটে করোনাভাইরাস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়েছে, যেভাবেই হোক এই ভাইরাস আমাদের দেশে ঢোকা রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। কারণ আমরা ঝুঁকি নিতে চাইছি না।

তিনি আরো বলেন, চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে আরও ১৭১ জন বাংলাদেশি দেশে ফিরে আসতে চাইছেন। কিন্তু বাংলাদেশ বিমানে তাদের আনতে সমস্যা হচ্ছে। কেননা, চীন থেকে দেশে ফেরা পূর্বের ফ্লাইটের কোন ক্রু বা পাইলটকে অন্য দেশে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তাই নতুন করে যারা আসতে চাইছেন, তাদের চীনের কোনো এয়ারলাইন্সের ভাড়া করা প্লেনে আনার কথা ভাবা হচ্ছে। তবে যারাই বাংলাদেশে আসবেন, তাদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে অনন্ত ১৪ দিন।

তবে জানাযায়, এখনো প্রতিদিন চীনে চারটি ফ্লাইট যাচ্ছে। প্রতি ফ্লাইটে ১০ থেকে ১২ জন যাত্রী হচ্ছে। যার ফলে শোনা যাচ্ছে, এয়ারলাইন্স গুলো নিজেরাই ফ্লাইট বন্ধ করে দেবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ