[bangla_day], [english_date], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]

খালেদা জিয়ার মুখে এমন শোকপ্রস্তাব মানায় না : হানিফ

প্রকাশঃ June 7, 2016 | সম্পাদনাঃ 7th June 2016

Feature Image

ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, ‘আপনি বলেছেন, রাজনীতিকদের জন্য দেশে রাজনীতি করার পরিবেশ নেই বলেই হত্যা-খুনের ঘটনা ঘটছে। তাহলে কি দেশের জনগণ ভাববে, রাজনীতি করার পরিবেশের ধুয়া তুলে আপনারা এসব হত্যাকাণ্ডে মদদ দিচ্ছেন? তাহলে কি আপনারা এসব হত্যার দায় স্বীকার করে নিচ্ছেন?

রাজধানীর গুলিস্তান মহানগর নাট্যমঞ্চে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আয়োজিত ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবসের আলোচনা সভায় মঙ্গলবার বিকেলে তিনি এ কথা বলেন।

মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, আপনাদের কর্মসূচিতে কেউ বাধা দেয়নি। আপনারা যখন খুশি তখন কর্মসূচি পালন করছেন। কিছুদিন আগেও আপনারা ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করেছেন। আপনাদের কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে তো কোনো বাধা নেই। বাধা আছে শুধু পেট্রলবোমায় মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করায়।

চট্টগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রী হত্যার ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিবৃতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার মুখে এমন শোকপ্রস্তাব মানায় না। দেশের মানুষ আপনার পেট্রলবোমার সন্ত্রাস এখনো ভুলে যায়নি। তখন সারা দেশের ২৭১ জন মানুষের প্রাণহানি ঘটেছিল। তখন তো আপনি ওই মানুষগুলোর জন্য শোক প্রকাশ করেননি। তাহলে কি ধরে নেব, ওই হত্যাকাণ্ডগুলো আপনার নেতৃত্বে ঘটেছিল বলেই আপনি শোক জানাননি।

হানিফ বলেন, গত পরশু চট্টগ্রামে এক পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। সে হত্যার আমরা নিন্দা জানিয়েছি। ইতিমধ্যে গোয়েন্দা সংস্থার কাছে কিছু তথ্য ও আলামত এসেছে। এতে প্রতীয়মান হয়, ওই চট্টগ্রামে সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাহিনীর, জামায়াত-শিবিরের আস্তানা ওই পুলিশ কর্মকর্তা ভেঙে দিয়েছিলেন। তারা প্রতিশোধের জন্য এ আঘাত হেনেছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, এ হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে এমন শাস্তি দিতে হবে যাতে ভবিষ্যতে আর কেউ এমন সাহস না দেখাতে পারে।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম রহমতউল্ল্যাহর সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় আরও উপস্থিত ছিলেন দলটির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, কৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, আন্তর্জাতিক-বিষয়ক সম্পাদক লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, শ্রমবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ